শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দান ২০২০ এর তালিকা বরণ ও বারণের শিক্ষায় সমুজ্জ্বল শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা আগামীকাল প্রবারণা পূর্ণিমা, শুক্রবার থেকে কঠিন চীবর দানোৎসব রামু ট্র্যাজেডির ৮ বছর: বিচার নিয়ে অনিশ্চয়তা প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে প্রার্থনা অনোমা সম্পাদক আশীষ বড়ুয়া আর নেই প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে ধারন হল বিশেষ আলেখ্যানুষ্টান বৌদ্ধ ধর্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হাত মেলালো ভারত-শ্রীলঙ্কা রাঙ্গামাটিতে থাইল্যান্ড থেকে আনিত দশটি বিহারে  বুদ্ধমূর্তি বিতরণ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসনের সাথে মতবিনিময়
শ্রীলঙ্কায় বৌদ্ধ ভিক্ষুদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা চালু

শ্রীলঙ্কায় বৌদ্ধ ভিক্ষুদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা চালু


আন্তর্জাতিক  ডেস্ক: বৌদ্ধ ভিক্ষুদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা চালু করতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা সরকার। দেশটির প্রায় ১৫ হাজার বৌদ্ধ সন্ন্যাসীকে এই স্বাস্থ্য বীমা সেবা দেয়া হবে। এই প্রকল্পের সিংহভাগ অর্থের যোগান দেবে সরকার। ইউনিয়ন অব ক্যাথেলিক এশিয়ান নিউজ এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দ রাজাপাকসে বলেছেন, বুদ্ধ সাসানা তহবিল থেকে ৪০ মিলিয়ন রুপি তথা ২ লাখ ১৭ হাজার মার্কিন ডলার প্রাথমিক অনুদান আসবে। এ ছাড়া সরকার ৫০ কোটি রুপি অবদান রাখবে।

বুদ্ধ সাসানা ও ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্ণধার রাজাপাকসে তহবিলের উন্নয়ন করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা জারি করেছেন। আগামী ১ অক্টোবর থেকে এ কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

শ্রীলঙ্কায় প্রায় ১৫ হাজার সন্ন্যাসী নিয়ে প্রায় ৬ হাজার বৌদ্ধ বিহার রয়েছে। পান্নালার একজন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী আইওমা ওয়াসালথান্থ্রি (৫৩) বলেছেন, বয়স্ক সন্ন্যাসীরা তাদের ওষুধের জন্য অর্থের সন্ধানে সংগ্রাম করছেন।

সরকার চিকিৎসা ফি ও সন্ন্যাসীদের জন্য স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহের বয়সসীমাও হ্রাস করবে। কোভিড -১৯ নিয়ন্ত্রণে আসার পরে চীনা ভাষা প্রশিক্ষণের জন্য ১০০ জন ভিক্ষুকে চায়না পাঠানো এবং সন্ন্যাসীদের জন্য তামিল ভাষা প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নেবে।

নবাগত সন্ন্যাসীদের জন্য দেশটি বৃত্তির সংখ্যা ৮শ’ থেকে বাড়িয়ে ১ হাজার ৫শ’ করবে এবং বৃত্তির পরিমাণ ৭৫০ থেকে বাড়িয়ে এক হাজার রুপি করবে। এছাড়াও বৌদ্ধ মন্দিরের সাথে সংযুক্ত রেস্ট হাউসগুলো আর কোনো ফিও নেবে না।

কলম্বোর আর্চডাইয়োসিসের একজন প্রবীণ ক্যাথলিক পুরোহিত বলেছেন, সরকার পুরোহিতদের জন্য বীমা কভারেজ দেয় না তবে ডায়োসিস তাদের যত্ন নেয়।

কোভিড যুগে তহবিল সংগ্রহের চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করে পুরোহিত বলেন, আমি গত দুই বা তিন বছর ধরে প্রতি সপ্তাহে একজন চিকিৎসককে দেখাচ্ছি, এসময় আমার সমস্ত চিকিৎসার দেখাশোনা করেছে ডায়োসিস।

পুরোহিত বলেন, ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালে পর্যন্ত পুরোহিতদের চিকিৎসার জন্য প্রায় ৭৯ মিলিয়ন রুপি ব্যয় করেছে আর্চডাইয়োসিস। অনেক প্যারিশ তথা জেলার অন্তর্গত যাজকীয় বিভাগ তাদের নিজস্ব তহবিল দিয়ে তাদের পুরোহিতদের দেখাশোনা করে।

উত্তর-পূর্ব শ্রীলঙ্কার ত্রিনকোমালির এক হিন্দু পুরোহিত জানিয়েছেন, তাদের কোনও সরকারী বীমা পরিকল্পনা নেই।

তিনি বলেন, এটা খুবই সহায়ক হবে যদি আমাদের এমন একটি প্রকল্প থাকে, যেহেতু আমরা বয়স্ক হওয়ার সাথে সাথে অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসার ব্যয় বহনের মতো অর্থ সঞ্চয় করিনি।

তিনি আরো বলেন, আমাদের একমাত্র আশা আমাদের বিশ্বস্তরা আমাদের যত্ন নেবে।

শ্রীলংকার ২১ মিলিয়ন জনসংখ্যার ৭০ শতাংশের প্রতিনিধিত্ব করে বৌদ্ধরা, যেখানে মুসলমানদের সংখ্যা ১০ শতাংশ এবং খ্রিস্টানদের সংখ্যা ৭ শতাংশ।

Facebook Comments

শেয়ার করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *





© All rights reserved © 2018 tathagataonline.net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com
error: কপি করার চেষ্ঠা না করে নিজের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ করুন
Don`t copy text!