রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দান ২০২০ এর তালিকা বরণ ও বারণের শিক্ষায় সমুজ্জ্বল শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা আগামীকাল প্রবারণা পূর্ণিমা, শুক্রবার থেকে কঠিন চীবর দানোৎসব রামু ট্র্যাজেডির ৮ বছর: বিচার নিয়ে অনিশ্চয়তা প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে প্রার্থনা অনোমা সম্পাদক আশীষ বড়ুয়া আর নেই প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে ধারন হল বিশেষ আলেখ্যানুষ্টান বৌদ্ধ ধর্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হাত মেলালো ভারত-শ্রীলঙ্কা রাঙ্গামাটিতে থাইল্যান্ড থেকে আনিত দশটি বিহারে  বুদ্ধমূর্তি বিতরণ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসনের সাথে মতবিনিময়
আগামীকাল মঙ্গলবার শুভ মধু পূর্ণিমা

আগামীকাল মঙ্গলবার শুভ মধু পূর্ণিমা


আগামীকাল মঙ্গলবার শুভ মধু পূর্ণিমা। আমাদের জন্য একটি তাৎপর্যময় তিথি। মহান আদ’শিক পুরুষ তথাগত বুদ্ধের জীবনের একটি ঐতিহাসিক ঘটনা এই পূর্ণিমার পটভূমিকায় রয়েছে বিধায় আমাদের নিকট দিনটির গুরুত্ব অপরিসীম।

বুদ্ধ এক সময়ে ভিক্ষু সংঘসহ কোশাম্বী (ভারত) অবস্থান করছিলেন। সেখানে বিনয়ধর ও সুত্রধর নামক দুজন ভিক্ষুর মধ্যে বিনয় সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হয়। পরে উভয় ভিক্ষুর অনুসারীদের মধ্যে সে বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে, এবং এক পর্যায়ে তা চরম আকার ধারণ করে। বুদ্ধ এ বিরোধ মীমাংসার চেষ্টা করেন। কিন্তু উভয় পক্ষের অনঢ় অবস্থানের কারণে কোন সমাধানে পৌঁছা সম্ভব না হলে বুদ্ধ ভীষণভাবে ব্যথিত হন। পরে বুদ্ধ তাদের ছেড়ে পারিল্যেয় নামক এক বনে গিয়ে আশ্রয় নেন এবং বর্ষাব্রত পালন শুরু করেন। বনে বর্ষাবাস পালনকালে একটি হাতি প্রতিদিন বুদ্ধের আহার্য হিসেবে ফলমূল আহরণ করে বুদ্ধকে দান দিত। হাতির এ দানকার্য দেখে একটি বানরেরও দান দেয়ার ইচ্ছা জাগ্রত হয়। সেই মনোবাসনা থেকে ভাদ্র পূর্ণিমার দিন বুদ্ধকে একটি মৌচাক দান করে বানর। কিন্তু মৌচাকে মৌমাছির ছানা ও ডিম থাকায় বুদ্ধ মৌচাক থেকে মধু পান করেননি। বানর ব্যাপারটা বুঝতে পারে এবং মৌচাকটি কিছুটা দূরে নিয়ে গিয়ে তা থেকে মৌমাছির ছানা ও ডিম পরিস্কার করে পুনরায় বুদ্ধকে দান করেন। এবার বুদ্ধ মধু পান করেন। এতে বানর খুবই আনন্দিত হয় এবং খুশীতে গাছে গাছে লাফাতে থাকে। এক পর্যায়ে অসাবধানবশতঃ গাছের শাখা থেকে নীচে পড়ে যায়। এতে সাথে সাথে বানরটির মৃত্যু ঘটে। কিন্তু মৃত্যুর পূর্বে এই দানীয় চেতনার উদ্ভব হয়েছিল বলে বানরের ঊর্ধ্বলোকে জন্ম হয় এবং কারো কারো মতে স্বর্গলাভ করে।

এর মাধ্যমে প্রমাণ হয়, মানুষের পাশাপাশি গৌতম বুদ্ধ সাধারণ প্রাণিকুলের সঙ্গেও অত্যন্ত মৈত্রীপরায়ণ ছিলেন। দেশব্যাপী বৌদ্ধ বিহারগুলোতে যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে দিনটি উদযাপিত হবে।

এ  মধু পূর্ণিমার দিনে  বুদ্ধপূজাসহ পঞ্চশীল, অষ্টশীল, সূত্রপাঠ,  মধুদান, সূত্রশ্রবণ, সমবেত প্রার্থনা ,এবং নানাবিধ মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। তারা বুদ্ধানুস্মৃতি ও সংঘানুস্মৃতি ভাবনা করে। বিবিধ পূজা ও আচার-অনুষ্ঠানের পাশাপাশি বিবিধ সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়। বৌদ্ধবিহারগুলোতে বুদ্ধের মহাজীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনাসহ ধর্মীয় সভার আয়োজন করা হয়।

দিনভর বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা দিনটি পালন করে থাকলেও বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে এবার এ উৎসবটি অনাড়ম্বরভাবে উদযাপন করা হবে। আয়োজন শুধু বুদ্ধপূজা, মহাসংঘদানের মতো আনুষ্ঠানিকতায় সীমাবদ্ধ থাকবে বলে এই ধর্মাবলম্বীরা জানিয়েছেন।

তাৎপর্যময় দিনটি পালনে নগরীর নন্দনকাননস্থ চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহার, কাতালগঞ্জ নবপন্ডিত বিহার, দেব পাহাড় পূর্ণাচার আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহার, মোগলটুলী শাক্যমুণি বিহার, চান্দগাঁও সার্বজনীন শাক্যমুনি বৌদ্ধ বিহার, চট্টগ্রাম বন্দর বৌদ্ধ বিহার ছাড়াও পটিয়া, বোয়ালখালী, কদুরখীল, আনোয়ারা, চন্দনাইশ, রাঙ্গুনীয়া, রাউজান, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, মিরসরাই, বাঁশখালী, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান ও কঙবাজারসহ দেশের সকল বৌদ্ধ বিহারে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ভোরে জাতীয় ও ধর্মীয় পতাকা উত্তোলন, সূত্র পাঠ, সকালে বুদ্ধপূজা, ভিক্ষুসংঘকে পিন্ডদান, অষ্টশীল ও পঞ্চশীল গ্রহণ, মধু দান, দুপুরে ধর্মালোচনা ও মধু পূর্ণিমার তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা, সন্ধ্যায় প্রদীপ পূজা ও বিশ্ব শান্তি কামনায় সমবেত প্রার্থনা।

আসুন সকলে মিলে এ দিনটিতে শীল, সমাধী প্রজ্ঞার অনুশীলন করে এ দুলভ’ মানব জীবনকে সার্থক করে তুলি।
সকলের জয় হোক, সকলের মংগল হোক।।

Facebook Comments

শেয়ার করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *





© All rights reserved © 2018 tathagataonline.net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com
error: কপি করার চেষ্ঠা না করে নিজের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ করুন
Don`t copy text!