রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দান ২০২০ এর তালিকা বরণ ও বারণের শিক্ষায় সমুজ্জ্বল শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা আগামীকাল প্রবারণা পূর্ণিমা, শুক্রবার থেকে কঠিন চীবর দানোৎসব রামু ট্র্যাজেডির ৮ বছর: বিচার নিয়ে অনিশ্চয়তা প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে প্রার্থনা অনোমা সম্পাদক আশীষ বড়ুয়া আর নেই প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে ধারন হল বিশেষ আলেখ্যানুষ্টান বৌদ্ধ ধর্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হাত মেলালো ভারত-শ্রীলঙ্কা রাঙ্গামাটিতে থাইল্যান্ড থেকে আনিত দশটি বিহারে  বুদ্ধমূর্তি বিতরণ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসনের সাথে মতবিনিময়
নিপীড়ক’ স্বামীর থেকে মুক্তি চান ধর্মান্তরিত ডালিয়া চাকমা

নিপীড়ক’ স্বামীর থেকে মুক্তি চান ধর্মান্তরিত ডালিয়া চাকমা


বৌদ্ধধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম ব ছেলেকে বিয়ে করেছিলেন খাগড়াছড়ির চাকমা জনগোষ্ঠীর ডালিয়া; সেই স্বামীর ‘নির্যাতন সইতে না পেরে’ ঘর ছেড়ে ঢাকায় এসে আশ্রয় নেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের এই শিক্ষার্থী সম্প্রতি চট্টগ্রাম থেকে গোপনে ঢাকায় আসার পর তাকে ইউপিডিএফ সদস্যরা অপহরণ করেছে দাবি করে কয়েকটি পত্রিকায় খবর প্রকাশ হয়।

শনিবার ডালিয়া সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “খবরটি ভিত্তিহীন। আমাকে কেউ অপহরণ করেনি। নিজে ঢাকায় এসে এক পরিচিতের বাসায় উঠেছি।”

পাশাপাশি স্বামী শাহাদত হোসেন জিসানের হাত থেকে বাঁচতে পুলিশের কাছে নিরাপত্তা চেয়ে একটি জিডি করেছেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার থানায় দায়ের করা ওই জিডিতে বলা হয়, ডালিয়ার বাড়ি খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার পেড়াছড়া গ্রামে। একই জেলার শালবন পশ্চিম জিয়া নগর এলাকার শাহাদত হোসেন জিসানের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক ধরে ২০১২ সালে গোপনে বিয়ে হয়।

বিয়ের আগে নিজ ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম গ্রহণ করেন ডালিয়া। বিয়ের পর থেকেই জিসান তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

এই অত্যাচারের কারণে প্রায় তিন মাস আগে ডালিয়া ‘তালাক’ দিয়ে স্বামীর ঘর ছেড়ে চলে আসার পর তাকে নানাভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও জিডিতে বলা হয়েছে।

তুলে নিয়ে যাবে, তুলে নিয়ে বড় ধরনের ক্ষতি করা হবে, কোথাও কাজ করতে দেওয়া হবে না- এমন সব হুমকির কথা জিডিতে লিখেছেন ডালিয়া।

তিনি জানান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি প্রথম বর্ষে পড়ার সময় জিসানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। জিসানও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ছা্ত্র।

বিয়ের খবর জানাজানি হওয়ার পর দুই পরিবারের কেউ তাদের মেনে নেননি। পরে হাটহাজারীতে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে সংসার জীবন শুরু করেন তারা।

ডালিয়ার অভিযোগ, জিসান তাকে বাসা থেকে বের হতে দিতেন না। কারও সঙ্গে মিশতে দেওয়া হত না। ক্লাসেও যেতে বাধা দিতেন। প্রতিবাদ করলে গায়ে হাত তুলতেন।

“মেরে মুখের চোয়াল ভেঙে দিয়েছে। বাণিজ্য মেলায় প্রকাশ্যে মারধর করেছে।”

তিনি বলেন, “জিসান বাসায় বন্ধুদের সাথে জুয়া ও মাদকের আড্ডা বসাত। এ সময় তার রান্নাঘরের বাইরে আসা বারণ ছিল। বাইরে থেকে রান্নাঘরের দরজা লাগিয়ে রাখত। বন্ধুরা চলে গেলে দরজা খুলে দিত। তখন বাসা থাকত এক নরক।”

এসব কারণে তার লেখাপড়া ব্যাহত হয় জানিয়ে ডালিয়া বলেন, “এক প্রকার সংগ্রাম করে লেখাপড়া চালিয়ে যাই এবং সময় সুযোগ মতো গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রত্ব বজায় রাখতে পরীক্ষা দিয়ে অনার্স পাশ করি। এরমধ্যেই আমার দুই বছর ড্রপ হয়।”

ডালিয়া জানান, তাকে অপহরণ করা হয়েছে বলে খবর প্রকাশিত হওয়ার পর পাহাড়িদের সংগঠন ইউপিডিএফের সদস্যরা তাদের বাসায় হামলা চালিয়ে তার বাবাকে মারধর করেছে।

স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকার আকাঙ্ক্ষা নিয়ে ঢাকায় এসেছেন জানিয়ে ডালিয়া বলেন, “ধর্ম ত্যাগ করে বিয়ে করায় বাবা-মা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছি। সমাজও আমাকে অন্য দৃষ্টিতে দেখে। এ অবস্থায় আমি এখন পুরোপুরি একা।

“এখন আমার নিরাপত্তা প্রয়োজন, জিসান যে কোনো সময় আমার ক্ষতি করতে পারে।”

Facebook Comments

শেয়ার করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *





© All rights reserved © 2018 tathagataonline.net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com
error: কপি করার চেষ্ঠা না করে নিজের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ করুন
Don`t copy text!