শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দানোত্তম শুভ কঠিন চীবর দান ২০২০ এর তালিকা বরণ ও বারণের শিক্ষায় সমুজ্জ্বল শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা আগামীকাল প্রবারণা পূর্ণিমা, শুক্রবার থেকে কঠিন চীবর দানোৎসব রামু ট্র্যাজেডির ৮ বছর: বিচার নিয়ে অনিশ্চয়তা প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে প্রার্থনা অনোমা সম্পাদক আশীষ বড়ুয়া আর নেই প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রে ধারন হল বিশেষ আলেখ্যানুষ্টান বৌদ্ধ ধর্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হাত মেলালো ভারত-শ্রীলঙ্কা রাঙ্গামাটিতে থাইল্যান্ড থেকে আনিত দশটি বিহারে  বুদ্ধমূর্তি বিতরণ প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসনের সাথে মতবিনিময়
গাজীপুর বৌদ্ধ বিহারের জায়গা গাজীপুর সরকারী মহিলা কলেজের নামে দখলের অভিযোগ

গাজীপুর বৌদ্ধ বিহারের জায়গা গাজীপুর সরকারী মহিলা কলেজের নামে দখলের অভিযোগ


গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরের মধ্যপাড়ার দাগ নং ৯৩৭ প্রয়াত জীমুত রন্জন বড়ুয়া ১৯৫৪-৫৫ইং সেন ভাওয়াল রাজ কোর্ট অব ওয়ার্ডস থেকে একখণ্ড জমি নিয়ে দীর্ঘ ৬৪ বৎসর যাবত নিরাপদে বসবাস করে আসছে।সাথে সাথে নিয়মিত খাজনা, পৌর ট্যাক্সও পরিশোধ করে আসছে।গাজীপুরে এ বৌদ্ধ পরিবারটিই একমাত্র স্থানীয় বাসিন্দা ।তিনি জীবিত কালে তাঁর এ জমিতে ২০০৪ সাল থেকে আমি ছোট্র একটা বৌদ্ধ বিহার নাম- গাজীপুর কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার দিয়ে পরিচালনা করে আসছি। কারণ গাজীপুরে ইতোপূর্বে কোন বৌদ্ধ বিহার না থাকাতে গাজীপুরে বসবাসরত বৌদ্ধরা হল ঘর ভাড়া করে কিংবা ডুয়েটের ছাত্র সংসদ মিলনায়তনে ধর্ম কর্ম করে আসছে। গাজীপুরে বেশীভাগ বৌদ্ধরা চাকরী সূত্রে গাজীপুরে বসবাস করে।

দু:খের বিষয় যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আগে হঠাৎ করে গাজীপুর সরকারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ এ ভূমিটি কলেজের বলে দাবি করে তাঁর কলেজের ছাত্রী দিয়ে একটি মানববন্ধন করেন।অথচ এ ভূমিতে কলেজ প্রতিষ্ঠার তিশ বৎসর আগে সেখানে তাদের বসবাস।জেলা প্রশাসক মহোদয়ও মৌখিকভাবে প্রয়াত জীমুত রন্জন বড়ুয়া’র ছেলে অমিতাভ বড়ুয়াকে ডেকে নিয়ে মৌখিক ধমকায় যেন তাদের বসতবাড়ী অতিসত্ত্বর ছেড়ে দেয়। আমাদের বৌদ্ধ বিহারের সাইনবোর্ডটিও পুলিশ দিয়ে তুলে নিয়ে যায়।
দু:খের বিষয় যে, বিগত ৯ জানুয়ারি ২০১৯ পুলিশ দিয়ে জীমুত রন্জন বড়ুয়া’র প্লটসহ আরো পাশের কয়েকটি প্লটে জোর পূর্বক কলেজের সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেয়। উচ্ছেদ করার জন্য হুমকি দিয়ে আসে। সেখানে আরো দুটো হিন্দু পরিবার আছে। এ নিয়ে পরিবারটি চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে। বসবাসরত ছোট ছেলে মেয়েরা ভীষম আতঙ্কের মধ্যে তাদের লেখা পড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম।

বাংলাদেশ বুড্ডিস্ট ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ভদন্ত ভিক্ষু সুনন্দপ্রিয় জানান, সরকারের জমি প্রয়োজন হলে উচ্ছেদের কিছু নিয়ম কানুন আছে। তার কোন ধার না ধেরেই একে বারে জোর কাটিয়ে কিছু নিরহ মানুষকে উচ্ছেদ করার পায়তারা কতোটুকু যুক্তিসংগত আমার জানা নেই।
আমি বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে এ নিরীহ মানুষ গুলোকে রক্ষার আবেদন জানাই।আর আমরা যেন ধর্মচর্চা ও মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত না হই।

Facebook Comments

শেয়ার করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *





© All rights reserved © 2018 tathagataonline.net
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com
error: কপি করার চেষ্ঠা না করে নিজের সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ করুন
Don`t copy text!